Home / বাংলা হেল্‌থ / শরণার্থী হিসেবে আমরা ফুটবলের মাধ্যমে যুদ্ধ করেছি এবং দেশের জন্য লড়েছি: কাজী সালাউদ্দিন

শরণার্থী হিসেবে আমরা ফুটবলের মাধ্যমে যুদ্ধ করেছি এবং দেশের জন্য লড়েছি: কাজী সালাউদ্দিন

বাংলাদেশে এখন শরণার্থী হিসেবে রয়েছে রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠী। স্বাধীন বাংলা ফুটবল দল যুদ্ধের সময় ভারতে শরণার্থী হিসেবে ছিল। স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীতে বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশন স্বাধীন বাংলা ফুটবল দল সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে বাফুফে সভাপতি কাজী সালাউদ্দিন ভারতের সেই দিনগুলোকে নিজেদের বর্তমান রোহিঙ্গার সঙ্গে তুলনা করেছেন।

বাফুফে ভবনে আয়োজিত সংবর্ধান অনুষ্ঠানে কাজী সালাউদ্দিন বলেন, আজকে যখন আমি রোহিঙ্গাদের দেখি আমার মনে পড়ে আমরা কিন্তু ঠিক রোহিঙ্গাদের অবস্থায় ছিলাম যখন কলকাতায় ছিলাম। যে জন্য রোহিঙ্গাদের দেখলে নিজের কথা মনে পড়ে আমার বয়স তখন ষোল-সাড়ে ষোল ছিল। এত কম বয়সেও ফুটবলের জন্য দেশের বাইরে লড়েছেন তারা,

শরণার্থী হিসেবে আমরা ফুটবলের মাধ্যমে যুদ্ধ করেছি এবং দেশের জন্য লড়েছি। স্বাধীন বাংলা ফুটবল দলের সেই দিনগুলো স্মরণ করলেন বাফুফে সভাপতি এভাবে, ‘মুক্তিযুদ্ধে অনেকে অনেকভাবে অংশগ্রহণ করেছে। সবাই তো বন্দুক নিয়ে যুদ্ধ করেনি, কেউ যুদ্ধ পরিচালনা-সংগঠিত করেছে। ফুটবলার হিসেবে আমাদের দায়িত্ব ছিল গোটা ভারতে প্রচার করা; বাংলাদেশে যুদ্ধ হচ্ছে।

আমরা শরণার্থী হিসেবে আছি আমাদের আপনার সাহায্য করেন। বাফুফে সভাপতি কাজী সালাউদ্দিন নিজেও স্বাধীন বাংলা ফুটবল দলের সদস্য। তিনি সর্বকনিষ্ঠ সদস্য ছিলেন ওই দলের। স্বাধীন বাংলা ফুটবল দলে নিজের নাম পাল্টে তূর্য হাজরা রেখেছিলেন যেন ঢাকায় পরিবারের উপর কোনো নির্যাতন না হয়।

২০০৮ সাল থেকে বাফুফে সভাপতি হন কাজী সালাউদ্দিন। গত এক যুগে দুইবার তিনি স্বাধীন বাংলা ফুটবল দলকে সংবর্ধনা দিলেন। এবারের সংবর্ধনা একটু ভিন্ন, ‘আমাদের মধ্যে অনেকেই পৃথিবীতে নেই। এর মধ্যে স্বাধীনতার ৫০ বছর হয়েছে। ৫০ বছর আগে দেশের জন্য যে ত্যাগ ছিল সেটা স্মরণ করা। এই সুবর্ণজয়ন্তী উপলক্ষ্যে বাফুফে সভাপতি হিসেবে এটা দায়িত্ব কিছু করা।

আমার ডাকে অনেকে আজ সাড়া দিয়েছেন এজন্য ধন্যবাদ। আমি স্বাধীন বাংলা ফুটবল দল নিয়ে বেশি করি না কারণ আমি সদস্য। অনেকে ভাববে আমি সদস্য এজন্য আমি বেশি করি। তবে দুই একটা আয়োজন না করলে আবার শান্তি পাই না। আজকের স্বাধীন বাংলা ফুটবল দলের সংবর্ধনার অন্যতম আকর্ষণ ছিল কিংবদন্তি ফুটবলার এনায়েতুর রহমান খান।

দুই যুগের বেশি সময় প্রবাসী এনায়েত। আজ ঢাকায় থেকেও অসুস্থতার জন্য অনুষ্ঠানে আসতে পারেননি, ‘আজ সকাল থেকে হঠাৎ আবার এনায়েতের হাই প্রেশার। মাঝে হাসপাতালে ছিল, আবারও হয়তো হাসপাতালে ভর্তি হওয়া লাগতে পারে।’ বলেন স্বাধীন বাংলা দলের ম্যানেজার তানভীর মাজহার তান্না।

Check Also

অ্যাশেজ জয় করে ইতিহাসের সেরা রেকর্ড গড়লো অস্ট্রেলিয়া!

অ্যাশেজের পঞ্চম ম্যাচেও ইংল্যান্ডকে রীতিমতো উড়িয়ে দিয়ে জয় নিয়েই সিরিজ শেষ করল অস্ট্রেলিয়া। হোবার্টে ১৪৬ …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *